আরডুইনো টিউটোরিয়াল পর্ব – ১: আরডুইনো কি? আরডুইনো সম্পর্কে বেসিক পরিচিতি

আসালামু আলাইকুম। বন্ধুরা সবাই কেমন আছেন? আশা করছি সবাই ভালো আছেন। নাবা টেক ওয়ার্ল্ডের আরডুইনো বিষয়ক টিউটোরিয়াল “ঘরে বসে আরডুইনো শিখুন, মজার মজার প্রজেক্ট তৈরী করুন” (Arduino Bangla Tutorial) এ আপনাদের সবাইকে স্বাগতম জানাচ্ছি। এই টিউটোরিয়ালের মাধ্যমে আমরা আরডুইনোর একদম বেসিক লেবেল থেকে ধারাবাহিকভাবে অ্যাডভান্সড লেভেল পর্যন্ত শেখার চেষ্টা করবো। আমাদের টিউটোরিয়ালটি সম্পর্কে আরো কিছু গুরুত্বপূর্ণ কথা রয়েছে পোস্টটির শেষের দিকে। সেগুলো অবশ্যই পড়ে নিবেন।

Arduino Bangla Tutorial

Arduino Bangla Tutorial

ইতোমধ্যে অনেকেই হয়তো ভাবছেন আরডুইনো নিয়ে বকবক করছি কিন্তু জিনিসটা আসলে কি? আবার অনেকেই আছেন যারা হয়তো কোথাও না কোথাও আরডুইনো নামটা শুনেছেন কিন্তু ঠিকভাবে জানেন না যে আসলে আরডুইনো কি। সে যাই হোক, আপনাদেরকে আগে থেকেই জানতে হবে তা তো নয়। আর আমরা যারা একদম কিছুই জানিনা এই বিষয়েই তাদের জন্যই মূলত এই টিউটোরিয়ালটি। তো চলুন অন্যসব কথা বলার আগে প্রথমেই জেনে নেই আরডুইনো আসলে কি। (বি:দ্র: নিচে কিন্তু ভিডিও টিউটোরিয়ালও রয়েছে। তাই চিন্তার কোন কারণ নেই। আগে পড়ে পড় বুজেন তারপর ভিডিওতে।)

আরডুইনো কি?

আরডুইনো হলো মূলত মাইক্রোকন্ট্রোলার বেইজড ওপেন সোর্স হার্ডওয়্যার। হায় হায়, এ কি? আমি আরডুইনো বুজাতে গিয়ে আপনাদের মাথা আরো গুলিয়ে ফেলছি। আরডুইনো বুজাতে গিয়ে মাইক্রোকন্ট্রোলার, ওপেন সোর্স হার্ডওয়্যার কি কি আজগুবি শব্দ বলছি। বন্ধুরা কোন সমস্যা নাই। চলুন একটা কাজ করি আরডুইনোকে ভালোভাবে বুজার আগে আমরা বুজে নেই মাইক্রোকন্ট্রোলার এবং ওপেন সোর্স হার্ডওয়্যার বলতে কি বুজায়।

মাইক্রোকন্ট্রোলার কি?

মাইক্রোকন্ট্রোলার (Microcontroller) হলো একটি আইসির মত দেখেতে বস্তু। মূলত একে একটি সিঙ্গেল চিপ মাইক্রোকম্পিউার বলা হয়ে থাকে। কেন? কারণ এই আইসির মতো দেখতে ছোট বস্তুটিতে মোটামুটি একটি কম্পিউটারের মৌলিক বৈশিষ্ট্যগুলো রয়েছে। অবাক হচ্ছেন? মোটেও অবাক হওয়ার কিছু নেই। এটাই বাস্তব। মাইক্রোকন্ট্রোলারকে আপনি কম্পিউটার দিয়ে প্রোগ্রাম করে একটি সুনির্দিষ্ট কাজ এর দ্বারা করিয়ে নিতে পারবেন। এর মধ্যে কোন একটা প্রোগ্রাম লোড করে দিলে এটি অন্য কোন কম্পিউটার কিংবা ইলেক্ট্রনিক ডিভাইস ছাড়াই নিজে নিজে বিভিন্ন ধরনের নির্দেশ এবং হিসাব নিকাশ একদম দক্ষতার সাথে ও নির্ভুলভাবে করে দিতে পারে। এই কারণেই মাইক্রোকন্ট্রোলারকে সিঙ্গেল চিপ মাইক্রোকম্পিউটার বলা হয়ে থাকে। ছবিতে আমরা একটি মাইক্রোকন্ট্রোলার দেখতে পাচ্ছি।

microcontroller

এবার আসি ওপেন সোর্স হার্ডওয়্যার বলতে কি বুজায়। এর উত্তর একটু পরে দিচ্ছি। আরডুইনোটা কি তা এবার বুজে নেই। আরডুইনো আসলে কিছুই না। এই যে মাইক্রোকন্ট্রোলারের কথা বললাম, এরকম একটা মাইক্রোকন্ট্রোলার আরডুইনোতে দিয়ে দেয়া থাকে। পাশাপাশি মাইক্রোকন্ট্রোলারটিকে যেন খুব সহজেই কম্পিউটার দিয়ে প্রোগ্রাম করা যায় তার জন্য এর মধ্যে বিশেষ সার্কিট রয়েছে যার সাহায্যে একে শুধু একটি ইউএসবি ক্যাবল দিয়ে কম্পিউটারের সাথে লাগালেই হয়। এরপর মাইক্রোকন্ট্রোলারটি যেন সহজে ব্যবহার করা যায় তার জন্য এতে অনেকগুলো ইনপুট আউটপুট পিন সুন্দর করে সাজানো থাকে। অর্থ্যাৎ আরডুইনো হলো মূলত একটি মাইক্রোকন্ট্রোলার বেইজড হার্ডওয়্যার বা সার্কিট যাই বলি। শুধু ব্যাপারটা হলো, মাইক্রোকন্ট্রোলারটা শুধুই একটা আইসি। এর মধ্যে যদি আমরা প্রোগ্রাম আপলোড করতে যাই তাহলে আরো অনেক সার্কিট লাগাতে হবে, তার লাগবে। আবার একে ব্যবহার করতে গেলে তখনও কোন পিনের সাথে কোন তার লাগাবো তা বের করা একটা ঝামেলার ব্যাপার। সেগুলো যেন না করতে হয় তার জন্য এই হার্ডওয়্যারটা ডিজাইন করা হয়েছে। যাকে আমরা আরডুইনো বলে ডাকি।

Arduino Bangla Tutorial

 

এই আরডুইনো বোর্ডের আরো কিছু বিশেষ সুবিধা আছে। যার মধ্যে অন্যতম হলো একটা মাইক্রোকন্ট্রোলারকে প্রোগ্রাম করতে হলে আপনাকে সি প্রোগ্রামিং জানতে হবে। আরডুইনোতে যেহেতু মাইক্রোকন্ট্রোলার আছে তাই একে প্রোগ্রাম করতে হলেও অবশ্যই আমাদের প্রোগ্রামিং জানতে হবে। আরডুইনোতেও মূলত সি প্রোগ্রামিং ব্যবহার করা হয়। তবে মজার ব্যাপার হলো, আরডুইনোর জন্য প্রোগ্রাম লিখাটা মাইক্রোকন্ট্রোলারের জন্য প্রোগ্রাম লিখার চেয়ে কয়েকগুণ বেশি সহজ। সহজের ব্যাপারটা আসলে যারা মাইক্রোকন্ট্রোলার প্রোগ্রামিং করে নি তাদেরকে বুজানো যাবে না। এখন হয়তো মনে খটকা জাগতে পারে যে, দুইটাই তো মাইক্রোকন্ট্রোলার। তাহলে একটার জন্য প্রোগ্রাম লিখা কঠিন কিন্তু আরেকটা জন্য সহজ। মাথায় ডুকছে নাকি? আচ্ছা বলছি। আসলে আরডুইনো নামে যে হার্ডওয়্যারের কথা এতক্ষণ বলছি এটা প্রস্তুত করে মূলত আরডুইনো নামক একটি কোম্পানী। এই কোম্পানী যে শুধু  এই বোর্ডটা তৈরী করে তা নয়। তারা হার্ডওয়্যার ডিজাইনের পাশাপাশি এক সহজে ব্যবহার করার জন্য সফটওয়্যারও ডেভেলপ করেছে। এই সফটওয়্যার এমনভাবে বানানো হয়েছে যে আমরা একদম সোজ ইংরেজী কিছু কথা লিখবো। আর তাতেই আমাদের আরডুইনোর জন্য প্রোগ্রাম হয়ে যাবে। অর্থ্যাৎ আরডুইনোর জন্য সহজে প্রোগ্রাম লিখার জন্য তারা এই সফটওয়্যার তৈরী করেছে। আবার এই সফটওয়্যার ব্যবহার করেই আমরা আরডুইনোতে আমাদের লেখা কোডকে আপলোডও করে দিতে পারবো। এর আরো কিছু সুবিধা রয়েছে সেগুলো পরবর্তীতে কাজ করার সময় দেখাবো। মানে এক কথায় বলতে গেলে একের ভেতর সব। মূলত এই কারণে সরাসরি মাইক্রোকন্ট্রোলার ব্যবহার না করে সবাই এখন আরডুইনো ব্যবহার করে।

আপনাদের কি ওপেন সোর্স  হার্ডএওয়্যারের কথা মনে আছে? এবার বলি ওপেন সোর্স হার্ডওয়্যার বলতে আসলে কি বুজায়। এর মানে হলো আরডুইনোর যে হার্ডওয়্যারটি আমরা দেখেছিলাম অর্থ্যাৎ সার্কিটের মতো যে জিনিসটা এটার সম্পূর্ণ ডিজাইন এবং যাবতীয় তথ্যাদি সকলের জন্য উন্মুক্ত। তাছাড়া আরডুইনোর ডেভেলপ করা সফটওয়্যার সমূহ একদম বিনামূ্ল্যে যে কেউ ব্যবহার করতে পারবে। দেখছেন কত গুরুত্বপূর্ণ একটি সফটওয়্যার ফ্রিতে দিয়ে দিছে? এই কারণেই মূলত একে ওপেন সোর্স হার্ডওয়্যার বলা হয়ে েথাকে। এখানে শুধু হার্ডওয়্যার বললেও প্রকৃতপক্ষে আরডুইনো কোম্পানীর সফটওয়্যার এবং হার্ডওয়্যার দুটোই ওপেন সোর্স। এখানে একটা কথা বলে রাখি ওপেন সোর্স বলতে আবার এটা বুজবেন না যে আরডুইনো বোর্ডটাও মনে হয় তারা আমাদেরকে ফ্রিতে দিয়ে দিবে। না ভাই, এরকম না। আরডুইনো যে বোর্ডটার কথা বললাম তা আপনাকে অবশ্যই বাজার থেকে কিনে আনতে হবে।

আরডুইনো টিউটোরিয়াল

আশা করছি আরডুইনো কি তা কিছুটা হলেও ধারণা পেয়ে গেছেন। এবার নিশ্চয় জানতে চাইবেন আচ্ছা ভাই এই আরডুইনো দিয়ে কি কি করা যাবে? হুম, আমি জানি। কারণ বেশিরভাগ মানুষই আমাকে এই প্রশ্নটাই করে। আসলে প্রশ্নের উত্তরটা না দিয়ে আমি পাল্টা প্রশ্ন করতে চাই তা হলো আরডুইনো দিয়ে কি কি করা যায় না? একটা ছোট এলইডি(ছোট বাতি) কে অন অফ করা থেকে শুরু করে একটা জটিল রোবট তৈরী সবই আরডুইনো দিয়ে করা সম্ভব। আমার মনে হয় আর কিছু বলা লাগবে না। তারপরও আপনাদের যদি আরে কিছু জানার থাকে তবে গুগল কিংবা ইউটিউবে গিয়ে ‘Arduino Projects’ লিখে সার্চ করুন। আপনার উত্তর পেয়ে যাবেন সেখান থেকে।

আপনি যদি ইন্টারনেট থেকে আরডুইনো প্রজেক্টস সম্পর্কে  জেনে থাকেন তাহলে নিশ্চয় এবার আপনার মাথায় ঘুরছে যে আরডুইনো দিয়ে এত এত রকম প্রজেক্ট করা যায় তাহলে তো এটা শেখাটা দরকার। কিন্তু কিভাবে শিখবো? কোথায় শিখবো? ইন্টারনেটের এই জগতে কোন কিছু শিখার জন্য কারো দিকে এখন আর তাকিয়ে থাকতে হয় না। গুগল আর ইউটিউবের সহায়তায় এখন মানুষ ঘরে বসেই নানা কিছু শিখতে পারছে। আপনি শুধু ’Arduino Tutorial’ এই কথাটি লিখে সার্চ করলেই বিশ্বের অনেক নামিদামি ওয়েবসাইটের খোঁজ পাবেন যারা অনলাইনে আরডুইনো টিউটোরিয়াল দিয়ে থাকে। সবচেয়ে মজার ব্যাপার হলো আরডুইনো কোম্পানী নিজেই আরডুইনোর উপর অনেক তথ্যবহুল টিউটোরিয়াল দিয়ে থাকে। তবে এদের সবগুলোই ইংরেজীতে। কিন্তু আমাদের মধ্যে অনেকেই আছে যারা ইংরেজীতে কিছুটা দূর্বল। আবার অনেকে আছে যারা ইংরেজী বুজে ঠিকই কিন্তু বিষয়গুলো গভীরভাবে বুজতে অসুবিধা হয় বা যেমন ভাবে চায় ঠিক তেমন ভাবে পায় না। আবার কোন সমস্যা হলেও তাদের সাথ যোগাযোগ করার সম্ভব হয় না। হলেও খুব একটা বেশি তারা সাড়া দেয় না। আর বাংলায় টিউটোরিয়াল? সে তো অমবশ্যার চাঁদ। বাংলা ভাষায় আরডুইনো এর উপর কোন টিউটোরিয়াল নেই বললেই চলে। যাও কয়েকটা রয়েছে তাদের কোনটিরই কোন নির্দিষ্ট ধারাবাহিকতা নেই। তবে অনেক কিছু শিখতে পারবেন এটা কিন্তু শিউর। এখন সমস্যা তাদেরকে নিয়ে যারা চায় একটা ধারাবাহিকতায় শিখতে। আবার অনেকেই আছে যারা একেবারেই নতুন। বিশেষ করে প্রোগ্রামিং গুলো একদমই বুজে না। তাদের জন্য তো আরো বেশি কঠিন। সেই চিন্তা মাথায় রেখে নাবা টেক ওয়ার্ল্ড আপনাদের জন্য পরিবেশন করছে “ঘরে বসে আরডুইনো শিখুন, মজার মজার প্রজেক্ট তৈরী করুন” টিউটোরিয়ালটি। আপনারা যারা এর আগেও আমাদের আরডুইনো বিষয়ক টিউটোরিয়াল গুলো দেখেছেন তারা তো অবশ্যই জানেন যে আমাদের টিউটোরিয়াল গুলোর বৈশিষ্ট্য। তারপরও যারা নতুন তাদের জন্য সংক্ষেপে বলছি। আরডুইনোর আপনি একদমই কিছুই বুজেন না? প্রথম নাম শুনছেন? কোন সমস্যা নেই। যদি কেবলমাত্র আপনার ইচ্ছা এবং ধৈর্য্য থাকে তাহলে বিশ্বাস রাখুন আপনিও আরডুইনো শিখতে পারবেন। প্রোগ্রামিং ভয় পান? চিন্তার কোন কারণ নেই। আমি আপনাদেরকে প্রতিটা অক্ষর ধরে ধরে বুজিয়ে দিবো। ইলেক্ট্রনিক্স সার্কিট সম্পর্কে তেমন কোন ধারণা নাই? লাগবে না, এখান থেকে ধারণা নিবেন।

আমরা কি শুধুই আরডুইনোটাই শেখাবো? জ্বী না। যা আপনি শিখবেন, যতটুকুই শিখবেন তাকে কাজে লাগিয়ে কোন প্রজেক্ট তৈরী করা সম্ভব কিনা আমরা তা করে দেখাবো। জ্ঞানের জাহাজ হয়তো হতে পারবো না, কিন্তু আমরা যা শিখতে পারবো তাকে কাজে লাগিয়েই কিভাবে মজার মজার প্রজেক্ট তৈরী করতে হয় তা আমরা দেখবো।

আপনাদের যাদের মধ্যে আরডুইনো শেখার আগ্রহ আছে তারা এখন নিশ্চয় জানতে চাইবেন যে আরডুইনো শিখতে হলে আমাদের কি কি লাগবে? জ্বী খুবই ভালো একটি পয়েন্ট। আমাদের এই টিউটোরিয়াল দিয়ে যদি আপনি শিখতে চান তবে অবশ্যই আপনাকে প্রথমেই আরডুইনো বোর্ড এবং আরো কিছু যন্ত্রপাতি সংগ্রহ করা লাগবে। ভিডিওতে এ নিয়ে আরো বিস্তারিত বলা আছে। এখন অনেকেই প্রশ্ন করে যে এগুলো কোথা থেকে সংগ্রহ করবো? সবচেয়ে সহজ সমাধান হলো বর্তমানে বাংলাদেশে অনেকগুলো অনলাইন ইলেক্ট্রনিক্স শপ আছে। সেখান থেকে খুব সহজেই কিনতে পারেন। আর ঢাকার নবাবপুর, গুলিস্তান এবং মিরপুরে অনেকগুলো পাইকারী মার্কেট আছে, চাইলে সেখান থেকেও কিনতে পারেন। তারপরও যদি সমস্যা হয় তাহলে আমাদের ফেসবুক পেজে মেসেজ করতে পারেন। সুযোগ থাকলে আমরা ব্যবস্থা করে দেয়ার চেষ্টা করবো।

আরডুইনো সম্পর্কে আরো কিছু জানতে আমাদের ভিডিও টিউটোরিয়ালটি দেখে নিতে পারেন:

অনেক কথাই বলা হয়ে গেছে। হয়তো পড়তে পড়তে অনেকে ক্লান্ত হয়ে গেছে। তাই এখানেই বিদায় নিয়ে নিচ্ছি। আজ আর তেমন কিছু বলবো না। তবে আপনার যদি আরডুইনো শেখার আগ্রহ থাকে তবে আমাগের ব্লগে নিয়মিত চোখ রাখুন। পাশাপাশি আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক এবং ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করে রাখুন। প্রতিটি পর্বেরই তাত্ত্বিক ব্যাপার সমূহ এখানে লিখবো আর প্র্যাকটিক্যাল বিষয়গুলো তো ভিডিওতে থাকবেই। আপনাদের যে কোন সমস্যা, জিজ্ঞাসা কিংবা পরামর্শ থাকলে আমাদের ব্লগে, ফেসবুকে কিংবা্ ইউটিউবে কমেন্ট করে জানাতে পারেন। আমরা অবশ্যই চেষ্টা করবো আপনাকে সাহায্য করতে।

ফেসবুজ পেজ: www.facebook.com/nabatechworld

ওয়েবসাইট: www.nabatechworld.com

ইউটিউব: Arduino Bangla Tutorial

তো বন্ধুরা আজ আর নয়। আমি অনেক বেশি বক বক করি। পরবর্তী পোস্ট এর জন্য অপেক্ষা করুন। আপনারা সবাই ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন। আল্লাহ হাফেজ।

Facebook Comments

Share This Post

7 Responses to "আরডুইনো টিউটোরিয়াল পর্ব – ১: আরডুইনো কি? আরডুইনো সম্পর্কে বেসিক পরিচিতি"

Post Comment